মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

মোঃ হুমায়ুন কবির, অফিস সহকারী এর NOC

 

বার আউলিয়া মাজার শরীফের সংক্ষিপ্ত বর্ণনা


উপজেলা সদর হতে ৯ কিঃমিঃ উত্তর-পূর্বে মির্জাপুর ইউনিয়নের বার আউলিয়া গ্রামের বিস্তীর্ণ ভূমিতে অবস্থিত বার আউলিয়া মাজার শরীফ। বার আউলিয়া ওলীদের আগমনের ইতিহাস বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেলেও ওলীদের ইতিহাস রহস্যাবৃত। এঁদের লিখিত কোন ইতিহাস আজও পাওয়া যায়নি। বার জন ওলী সূফী-সাধক চট্রগ্রামের শহর প্রান্তে প্রথমে এসে আস্তানা স্থাপন করেন। সেই জায়গাটি আজও বার আউলিয়া নামে প্রসিদ্ধ। জানাগেছে, বার জন ওলী খাজা বাবার নির্দেশে চট্রগ্রাম সহ পূর্ববঙ্গের বিভিন্ন অঞ্চলে আস্তানা গড়ে তুলে ইসলাম প্রচার শুরু করেন। পরে স্থল পথে রওয়ানা হয়ে ইসলাম প্রচার করতে করতে উত্তরবঙ্গের শেষ প্রান্ত এসে পৌছান এবং পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের বার আউলিয়ায় আস্তানা গড়ে তুলে ইসলাম প্রচার শুরু করেন। আটোয়ারীর মাটিকে পুণ্য ভূমিতে পরিণত করে সময়ের বিবর্তনে ওলীদের এখানেই সমাহিত করা হয়। গড়ে ওঠে বার আউলিয়া মাজার শরীফ। তৎকালীন সময়ে স্থানীয় কিছু মানুষ ও খাদেমগণ বৈশাখ মাসের শেষ বৃহস্পতিবার খুব স্বল্প পরিসরে ওরস পালন করতেন। বর্তমান সময়ের মতো লক্ষ লক্ষ লোকের সমাগম হতো না। বার আউলিয়া মাজার সম্প্রসারণের বিষয়ে বাস্তব ইতিহাস রয়েছে। ইতিহাসটি হলো- ১৯৯০ সালের দিকে পঞ্চগড় জেলার তৎকালীন জেলা প্রশাসক আবুল বাশার আহাম্মদ একদিন জীপ গাড়ীতে বার আউলিয়া মাজার রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন। হঠাৎ তার জীপ বন্ধ হয়ে যায়। অনেক চেষ্টার পরও জীপের ইঞ্জিন চালু না হওয়ায় স্থানীয় লোকজন মাজার শরীফ দেখিয়ে দেন। তিনি তাৎক্ষণিক ওযু করে মাজার জিয়ারত করেন। প্রার্থনা শেষে, গাড়ীতে বসলে বিনা ধাক্কায় গাড়ীর ইঞ্জিন চালু হয়। ঐদিন রাতেই তিনি ওলীদের দ্বারা স্বপ্নে বার আউলিয়া মাজার উন্নয়নের নির্দেশনা পান এবং পরের দিন সকালে আবার মাজার জিয়ারত করতে আসেন। সে সঙ্গে তার অসুস্থ দুই পুত্রের জন্য মানত করে মাজার উন্নয়নে এগিয়ে আসেন। তাঁর আহবানে এলাকায় ব্যাপক সাড়া জাগে এবং প্রথমে তিনি একত্রে পাশাপাশি অবস্থিত দুজন ওলীর কবরের উপর একটি পাঁকা দালান নির্মাণ করেন। এরপর উপজেলার নলপুখুরী গ্রামের মোঃ খলিলুর রহমান অবশিষ্ট দশ জন ওলীর কবরের প্রতিটির চার পার্শ্বে দেওয়াল নির্মাণ করেন। তৎকালীন স্পীকার, আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী মরহুম মির্জা গোলাম হাফিজ এর প্রচেষ্টায় প্রায় ৪৭ একর জমিতে মাজার কমপেক্স, মাজার, গোরস্তান, পুকুর, মসজিদ, মাদ্রসা ও ডাকবাংলা নির্মিত হয়।

তারপর থেকে ক্রমান্বয়ে ওরস বিস্তৃতি লাভ করে। ১৯৯৪ সাল থেকে জেলা প্রশাসকের প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে বাৎসরিক ওরশ, মাজার ব্যবস্থাপনা, মাজার উন্নয়নসহ নানাবিধ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। 

 

যোগাযোগঃ  

টেলিফোনঃ০৫৬৫২-৫৬০০২

ই-মেইল- unoatwari@mopa.gov.bd

web-  http://atwari.panchagarh.gov.bd/

উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়

আটোয়ারী, পঞ্চগড়। 

কিভাবে যাওয়া যায়:

রাজধানী ঢাকা হতে ডে/নাইট কোচ যোগে সরাসরি আটোয়ারী উপজেলা বাস ষ্ট্যান্ড। আটোয়ারী থেকে বাসযোগে মির্জাপুর ৬ কিলোমিটার। মির্জাপুর হতে পূর্বদিকে রিক্সা/ভ্যানযোগে ৩ কিলোমিটার বার আউলিয়া মাজার শরীফ। রাজধানী ঢাকা'র কমলাপুর রেল ষ্টেশন হতে সরাসরি দিনাজপুর ষ্টেশন। অতঃপর দিনাজপুর হতে কিসমত (আটোয়ারী) রেল ষ্টেশন হয়ে বাস/রিক্সা/ভ্যানযোগে ৬কিলোমিটার আটোয়ারী উপজেলা। আটোয়ারী থেকে বাসযোগে মির্জাপুর ৬ কিলোমিটার। মির্জাপুর হতে পূর্বদিকে রিক্সা/ভ্যানযোগে ৩ কিলোমিটার বার আউলিয়া মাজার শরীফ।