মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

ঘাগড়া দ্বারিকামারী উচ্চ বিদ্যালয়

  • সংক্ষিপ্ত বর্ণনা
  • প্রতিষ্ঠাকাল
  • ইতিহাস
  • প্রধান শিক্ষক/ অধ্যক্ষ
  • অন্যান্য শিক্ষকদের তালিকা
  • ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা (শ্রেণীভিত্তিক)
  • পাশের হার
  • বর্তমান পরিচালনা কমিটির তথ্য
  • বিগত ৫ বছরের সমাপনী/পাবলিক পরীক্ষার ফলাফল
  • শিক্ষাবৃত্ত তথ্যসমুহ
  • অর্জন
  • ভবিষৎ পরিকল্পনা
  • ফটোগ্যালারী
  • যোগাযোগ
  • মেধাবী ছাত্রবৃন্দ

পঞ্চগড় জেলা সদর হতে পূর্ব-উত্তর কোণে পাকা রাস্তায় ১২ কি.মি. দূরত্বে ৭নং হাড়িভাসা ইউনিয়ন পরিষদ ভবন ও হাড়িভাসা বাজার সংলগ্নে ১৯৬৩ খ্রি. স্থানীয় গণ্যমান্য শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের চাঁদা ও ব্যক্তিগত অর্থায়নে ০৮-০৭-১৯৬৩খ্রি. ৩৩৩ শতক জমি ক্রয়ের মাধ্যমে অত্র বিদ্যালয়টি স্থাপিত হয়। প্রতিষ্ঠানের মূল ভবন ৬৩ শতক, খেলার মাঠ ৫৫ শতক, পুকুর ৭৪ শতক, বাগান ৭১ শতক, মসজিদ ঘর ১০ শতক ও আবাসযোগ্য ৬০ শতক, মোট ৩৩৩ শতক। পাকাঘর একাডেমিক ভবন ০১টি, টিনসেট বিল্ডিং ০৫টি, মোট ০৬টি।

মোট ৬৮৯১ বর্গফুট। অফিস কক্ষ ০১টি, শিক্ষাপর্ষদ কক্ষ ০১টি, ছাত্রী কমন কক্ষ ০১টি, লাইব্রেরী কক্ষ ০১টি, শ্রেণী কক্ষ ০৭টি, মসজিদ ঘর ০১টি, টু-ইন ল্যাট্রিন দুইটি।

বৃটিশ শাসনামলে জলপাইগুড়ি জেলার অন্তর্গত বোদা পরগনার চাকলার মধ্যে দুইটি বৃহৎ মৌজার নাম ছিল - একটি ঘাগড়া ও অপরটি দ্বারিকামারী। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান হওয়ার পর ১৯৫০ সালে জমিদারী প্রথা বিলুপ্ত ঘটলে পরবর্তীতে সরকারি বিধি অনুযায়ী ঘাগড়া দ্বারিকামারী ইউনিয়ন বোর্ডকে ১৯৫৮ সালে (প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খান সরকার) ঘাগড়া দ্বারিকামারী ইউনিয়ন কাউন্সিল নামে রূপান্তরিত হয়।

মাধ্যমিক পর্যায়ে শিক্ষা প্রসারের লক্ষ্যে তদানিন্তন ঘাগড়া দ্বারিকামারী ইউনিয়ন কাউন্সিল চেয়ারম্যান জনাব মরহুম মশিউর রহমান প্রধান ও সমাজসেবক জনাব মরহুম মোতাহার আলী প্রধান এর আহবানে ব্যাপক প্রচারের মাধ্যমে বিদ্যালয় স্থাপনা কমিটি গঠন করা হয়। জনাব মরহুম মশিউর রহমান প্রধান (ইউনিয়ন কাউন্সিল চেয়ারম্যান) উক্ত কমিটির সভাপতি ও জনাব মরহুম মোতাহার আলী প্রধান কমিটির সম্পাদক/সদস্য সচিব নির্বাচিত হন। ঘাগড়া দ্বারিকামারী ইউনিয়ন কাউন্সিল এলাকায় আর কোন নিম্ন মাধ্যমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত না হওয়ায় উক্ত দুই মৌজার ইউনিয়নের নামানুসারে স্থাপনা কমিটির সদস্যসহ জ্ঞানী-গুনি বিদ্যানুরাগী উদ্যোগী ব্যক্তিবর্গ সম্মিলিতভাবে বিদ্যালয়টির নামকরণ করেন ‘ঘাগড়া দ্বারিকামারী উচ্চ বিদ্যালয় (GHAGRA DWARIKAMARI HIGH SCHOOL)। গণ্যমান্য, শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের চাঁদা ও ব্যক্তিগত অর্থায়নে ০৮-০৭-১৯৬৩খ্রি. ৩৩৩ শতক জমি ঘাগড়া দ্বারিকামারী জুনিয়র স্কুলের পক্ষে সম্পাদক/সদস্য সচিব জনাব মরহুম মোতাহার আলী প্রধান ক্রয় করেন। বিদ্যালয় স্থাপনের পর ১৯৭৩খ্রি. ঘাগড়া নামীয় এলাকা/মৌজাটি হাড়িভাসা ইউনিয়ন ও দ্বারিকামারী এলাকা/মৌজাটি হাফিজাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নামকরণ করে দুইটি পৃথক এলাকাভিত্তিক হাড়িভাসা ও হাফিজাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ নামে পূর্ববর্তী দিনাজপুর জেলার পঞ্চগড় থানা বর্তমান পঞ্চগড় সদর উপজেলায় নামকরণের রূপরেখা লাভ করে।

জনাব আলী আহম্মদ, এসডিইও, ঠাকুরগাঁও এর অনুমতির মাধ্যমে প্রয়োজনীয় সংখ্যক গৃহ নির্মাণ ও পাঁচ জন শিক্ষক (১. জনাব আবুল ফারাহ মোঃ মোবারক হোসেন, ২. জনাব মোঃ তজমল হক প্রধান, ৩. জনাব মোঃ খয়রুল আলম, ৪. জনাব মোঃ নজরুল ইসলাম, ৫. জনাব মোঃ আব্দুস সামাদ) নিয়োগদানের মাধ্যমে ০১-০১-১৯৬৪খ্রি. ৬ষ্ঠ হতে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান চালু করেন। ১২ জুলাই ১৯৬৫খ্রি. বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি জনাব মশিউর রহমান (চেয়ারম্যান) ইন্তেকাল করায় ১৮-০৭-১৯৬৫খ্রি. বিদ্যালয় স্থাপনা কমিটির সভাপতি জনাব মরহুম মোতাহার আলী প্রধান ও জনাব মরহুম তজমল হক প্রধানকে সম্পাদক করে বিদ্যালয়ের কার্যক্রম চালু করেন।  ২৩ সেপ্টেম্বর, ১৯৬৬খ্রি. জেলা প্রশাসক, দিনাজপুর ও জেলা শিক্ষা অফিসার, দিনাজপুর এর নিকট কে বা কারা বিদ্যালয় স্থাপন করণের জন্য বিদ্যালয় স্থাপনা কমিটির বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ আনয়ন করায় প্রশাসনের কর্মকর্তাগণের নির্দেশে নভেম্বর, ১৯৬৬ হতে ১৯৬৭ খ্রি. পর্যন্ত বিদ্যালয় পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ হয়।

কিন্তু বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির কার্যক্রম চলতে থাকে। পরবর্তীতে ০১-১১-১৯৬৭খ্রি. বিদ্যালয় গভর্ণিং বডির সভাপতি জনাব মরহুম তজমল হক প্রধান (ইউনিয়ন কাউন্সিল চেয়ারম্যান) ও সম্পাদক জনাব মরহুম মোতাহার আলী প্রধানসহ জনাব মরহুম বছির উদ্দিন প্রধান, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ মরহুম আমির উদ্দিন (ওস্তাতজী) ও মরহুম দরবেশ আলহাজ্জ্ব মনির উদ্দিন, মরহুম আলাউদ্দিন প্রধান, মরহুম মন্তেক আলী, মরহুম মকবুল হোসেন, মরহুম বছির উদ্দিন, আলহাজ্জ্ব মরহুম নফির উদ্দিন আহাম্মদ, মরহুম আঃ সোবহান, মরহুম বাবু শচীন্দ্রনাথ রায়, জনাব আবুল ফারাহ মোঃ মোবারক হোসেন, মরহুম মোজাম্মেল হক প্রধান, মরহুম ফজলুল করিম প্রধান, মরহুম রহিম উদ্দিন মুন্সি, মরহুম নাছির উদ্দীন (নেকাই), মরহুম রহিম উদ্দিন (বিষু), মরহুম আলহাজ্জ্ব আছিম উদ্দিন, মরহুম সুবেদ আলী দেওয়ানী, মরহুম জগেন্দ্র নাথ রায়, মরহুম ধনেশ চন্দ্র রায়, মরহুম তছলিম উদ্দীন, মরহুম বড় মিয়া প্রমুখ সাহেবগণের প্রচেষ্টায় সরকারি বিধিবিধান অনুযায়ী ও অনুমোদনের মাধ্যমে বিদ্যালয় পাঠদান কার্যক্রম ০১-০১-১৯৬৮খ্রি. চালু হয় এবং পরবর্তীতে ৯ম ও ১০ম শ্রেণীর অনুমোদন লাভ করে। যার স্মারক নং- ৫/এস/৬৬১/৮৯৫ তারিখ- ১৮/০৬/১৯৭০ ও স্মারক নং- ৫/এস/১৭৫/৪৫৮ তারিখ- ১১/০৬/১৯৭১ এর প্রেক্ষিতে ১৯৭১খ্রি. প্রথববারের মত এসএসসি/পাবলিক পরীক্ষায় ছাত্র/ছাত্রী অংশগ্রহণ করে। অদ্যাবধি প্রতিবছর ন্যুনতম ৮০/৯০ জন ছাত্র/ছাত্রী এসএসসি/পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের মাধ্যমে অবদান রাখছেন। ০১-০১-১৯৮৪খ্রি. প্রথম On test (পরীক্ষামূলক) এমপিও হয় ও ০১-০৬-১৯৮৫খ্রি. এমপিও ভূক্ত হয়ে শিক্ষক ও কর্মচারীগণ বেতন ভাতাদির সুবিধা ভোগ করে আসছেন। বিদ্যালয় ও ব্র্যাক (এনজিও) সহযোগীতায় একটি পাঠাগার/লাইব্রেরী স্থাপন করা হয় এবং কম্পিউটার ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে শিক্ষার্থীগণ লেখাপড়া ও জ্ঞান অর্জনের সুবিধা ভোগ করছে। উল্লেখ্য যে, অত্র এলাকায় জ্ঞানী-গুনী বিদ্যানুরাগী উদ্যোগী ব্যক্তিবর্গ বিভিন্ন সময়ে চাঁদা / অর্থ দানসহ বিভিন্ন দ্রব্য/পণ্য দান করেন। গত ২১/০৫/১৯৮১খ্রি. প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ০১. জন জনাব মরহুম আফতাব উদ্দিন জমির পরিমাণ ২০০ শতাংশ ও ০২. জনাব মোঃ জহিরুল ইসলাম জমির পরিমাণ ২০০ শতাংশ এবং দাতা সদস্য ০১. মরহুম আলাউদ্দীন প্রধান জমির পরিমাণ ১৬৬ শতাংশ, ০২. মরহুম আলহাজ্জ্ব আছিম উদ্দিন জমির পরিমাণ ১৯৫ শতাংশ, ০৩. জনাব মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক জমির পরিমাণ ১০৩ শতাংশ ও ০৪. জনাব মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম জমির পরিমাণ ৩৩ শতাংশ সর্বমোট ৮৯৭ শতাংশ বিদ্যালয়ের অনুকুলে জমি দান করেন এবং উক্ত জমি রেজিস্ট্রিকরণের লক্ষ্যে জনাব মরহুম বছির উদ্দিন সাহেব এককালীন ১০,০০০/- টাকা বিদ্যালয়ের অনুকূল দান করেন। কিন্তু দুঃখের বিষয় অদ্যাবধি উক্ত ৮৯৭ শতাংশ জমির কোন দখল/ফসল/অর্থ বিদ্যালয়ের অনুকূলে জমা করেন নাই বা হয় নাই।

হাড়িভাসা নামকরণঃ- পূর্বযুগে হাড়ী জাতীয় একশ্রেণীর পরিবার দলবদ্ধভাবে বসবাস করত এবং তারা হাড়ী, পাতিল, ডুকি, তাওয়া ইত্যাদি মাটির সামগ্রী তৈরি করে গ্রামে-গঞ্জে ও বাজারে বিক্রি করত। সাধারণ মানুষ হাড়ী জাতীয় লোকদের বাসস্থানকে হাড়ী-বাসা বলত। এই হতে স্থানটির নাম হয় হাড়িভাসা ও হাড়িভাসার হাট। পরবর্তীতে হাড়ী জাতীয় পরিবারগণ বিভিন্ন এলাকায় স্থানান্তরিত হয়। হাড়িভাসা বাজারকে কেন্দ্র করে ইউনিয়নের নামকরণ হয় হাড়িভাসা ইউনিয়ন পরিষদ। ঘাগড়া মৌজাটি ১৯৬২ সালে ১০টি বিভিন্ন মৌজায় এবং দ্বারিকামারী মৌজাটি ০৫টি মৌজায় নামকরণ করা হয়।

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোঃ তালেবুল ইসলাম প্রধান ০১৭১৭১৬৫৭৪৬ talebulislamprodhan59@gmail.com

ছবি নাম মোবাইল ইমেইল
মোহাম্মদ শাহজালাল ০১৭১০৬০৬৬৬৬ shahjalalmanik@gmail.com

শ্রেণী

ছাত্র

ছাত্রী

মোট ছাত্র-ছাত্রী

ষষ্ঠ

৮৫

১০

৯৫

সপ্তম

৬৩

০৩

৬৬

অষ্টম

৫৩

১৪

৬৭

নবম

৪২

০৫

৪৭

দশম

৪০

০৪

৪৪

মোটঃ

২৮৩

৩৬

৩১৯

৯৫%

ক্রমিক নং

পরীক্ষার নাম

পরীক্ষার সন

পরীক্ষার্থীর সংখ্যা

উর্ত্তীণের সংখ্যা

পাশের হার

০১

এস.এস.সি

২০০৮

৪৫

 

৬০%

০২

এস.এস.সি

২০০৯

৪৭

 

৪৭%

০৩

এস.এস.সি

২০১০

৫৬

 

৩৪%

০৪

এস.এস.সি

২০১১

৬৭

 

৬৩%

০৫

এস.এস.সি

২০১২

৬৯

 

৭৫.৩৭%

০৬

জে.এস.সি

২০১০

৪৪

 

৪৩%

০৭

জে.এস.সি

২০১১

৬৭

 

৮৮.০৫%

 

শিক্ষাবৃত্তির তথ্য :

৭ম - ২৫ জন, ৮ম - ১৮ জন, ৯ম - ২০ জন, ১০ম - ১৫ জন।

 

অর্জন :

* এলাকায় নারী পুরুষের কম অর্থ ব্যয়ে লেখাপড়া করে শিক্ষিতের হার বৃদ্ধি পেয়েছে।

* উত্তম শিক্ষার্থীগণ উচ্চ শিক্ষা লাভ করে উচ্চপদে চাকুরি করছে।

* ড. ডিগ্রী লাভ করে দেশে ও বিদেশে কাজ করছে।

* সাধারণ শিক্ষিতরা সমাজ সেবায় নিয়োজিত থেকে এলাকার ও দেশের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে নিয়োজিত আছে ও অবদান রেখে চলেছে।

* সহ-শিক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করে অত্র এলাকার মান বৃদ্ধি হয়েছে।

 

ভবিষ্যৱ পরিকল্পনা :

(ক) নিজস্ব ও সরকারি সাহায্য সহযোগিতার মাধ্যমে নতুন অবকাঠামো ও আসবাবপত্র নির্মাণ করা।

(খ) জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র স্থাপনের ব্যবস্থা করা।

(গ) একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণী চালু করা।

(ঘ) সেকশন চালু করা ও শিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি করা।

(ঙ) শিক্ষার্থীর উপস্থিতি নিশ্চিত করা ও ড্রপ-আউট বন্ধ করা।

(চ) শতভাগ পাশ নিশ্চিত করা।

(ছ) শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আরও দক্ষ করা।

 

যোগাযোগ :

পত্র যোগাযোগঃ ডাকঘরঃ হাড়িভাসা , উপজেলা- পঞ্চগড় সদর, জেলাঃ পঞ্চগড়

টেলিফোন - নাই

ফ্যাক্র - নাই

মোবাইলঃ ০১৭১৭১৬৫৭৪৬

সড়ক যোগাযোগ ঃ  পঞ্চগড় শহর হতে জালাসী-তালমা হয়ে পাকা রাস্তায় ১২ কি.মি. পূর্ব-উত্তর কোণে হাড়িভাসা বাজার সংলগ্ন।

রেল যোগাযোগঃ নাই।

E-mail : ghagra.dhspancha@gmail.com